Instanotes

দ্বন্দ্ব সমাস কাকে বলে? দ্বন্দ্ব সমাস কত প্রকার ও কি কি? দ্বন্দ্ব সমাসের উদাহরণ

দ্বন্দ্ব সমাস কাকে বলে?

যে সমাসের সমস্যমান পদ দুটি একটি সংযোজক অব্যয় দ্বারা যুক্ত থাকে এবং প্রত্যেক পদের অর্থ প্রাধান্য পায়, তাকে দ্বন্ধ সমাস বলে।

উদাহরণঃ

  • হাটে ও বাজারে – হাটেবাজারে
  • শত্রু ও মিত্র – শত্রু-মিত্র
  • অন্ন ও বস্ত্র – অন্নবস্ত্র
  • জায়া ও পতি – দম্পতি

দ্বন্দ্ব সমাসের বৈশিষ্ট্য কি কি?

  • দ্বন্দ্ব কথাটির আভিধানিক অর্থ মিলন, প্রচলিত অর্থ কলহ বা বিবাদ এবং ব্যকরণসন্মত অর্থ হল যুগ্ম বা জোড়া।
  • দ্বন্দ্ব শব্দের বুৎপত্তি হল দ্বি + দ্বি
  • উভয় পদের অর্থের প্রাধান্য থাকে।
  • উভয় পদে একই বিভক্তি থাকে।
  • ব্যাস বাক্যে ও/এবং/ আর থাকে।
  • অধিক মর্যাদাপূর্ণ শব্দটি আগে বসে

দ্বন্দ্ব সমাস কয় প্রকার ও কি কি?

দ্বন্দ্ব সমাসকে বিভিন্নভাবে ভাগ করা যায়। যেমন-

১। সমার্থক দ্বন্দ্বঃ পদগুলো বস্তুবাচক হয় এবং ক্ষমতার সম্পর্ক থাকে। কাজ ও কর্ম= কাজ-কর্ম, হাট-বাজার, ঘর-দুয়ার, কল-কারখানা, খাতা-পত্র, লজ্জাশরম।

২। বিপরীতার্থক দ্বন্দ্বঃ পদগুলো বিপরীত অর্থ প্রকাশ করে।দিন ও রাত= দিন-রাত, জমা-খরচ, ছোট-বড়, ছেলে-বুড়ো, লাভ-লোকসান, পাপপুণ্য, জন্মমৃত্যু।

৩। বিকল্পার্থক দ্বন্দঃ পূর্বপদ ও পরপদের অর্থ বিকল্প হিসাবে গণ্য হয়। হার অথবা জিৎ= হার-জিৎ, কম-বেশি, সাত-পাঁচ, উনিশ-কুড়ি।

৪। সমাহার দ্বন্দ্বঃ দুধ ও কলা= দুধ-কলা

৫। মিলনার্থক দ্বন্দ্বঃ চাল ও ডাল= চাল-ডাল, মা-বাপ, মাসি-পিসি, জ্বিন-পরি, চা-বিস্কুট, মেয়ে-জামাই, নামধাম

৬। অলোপ দ্বন্দ্বঃ কাগজে ও কলমে= কাগজে-কলমে, দেশে-বিদেশে, কোলে-পিঠে, হাতে-কলমে, পথে-ঘাটে।

৭। বহুপদী দ্বন্দঃ রূপ, রস, গন্ধ ও স্পর্শ= রূপ-রস-গন্ধ-স্পর্শ, স্বর্গ-মর্ত্য-পাতাল।

৮। একশেষ দ্বন্দ্বঃ সমস্ত পদটি একক হিসাবে বসে এবং সবসময়ই বহুবচন হয়।সে ও তুমি= তোমরা।

Share

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *